মনোজগত : কথিত কিশোর ম্যাগাজিন তরম্নণদের জন্য ৰতিকর

কিশোর ম্যাগাজিনের পাঠকপ্রিয়তা দিন দিন বাড়ছে৷ একই কারণে এ শিল্প ক্রমেই ফেঁপেফুলে উঠছে৷ কোন বাছবিচার না করেই উঠতি বয়সের তরম্নণ-তরম্নণীরা এর বিষয়বস্তু গোগ্রাসে গিলছে৷ অনেক সময় অভিভাবকদের সতর্কবাণীও কাজে লাগছে না৷ তাছাড়া সব অভিভাবকও বিষয়টি সম্পর্কে সচেতন বা ওয়াকিবহাল নন৷ অতএব স্বাভাবিকভাবেই চলছে কথিত কিশোর ম্যাগাজিনের রমরমা ব্যবসা৷ অথচ একদল মনোবিজ্ঞানী এ সম্পর্কে ভয়ংকর তথ্য জানিয়েছেন৷ তাদের মতে, যেসব তরম্নণ তথাকথিত কিশোর ম্যাগাজিন নিয়মিত পড়েন তাদের মানসিক বৈকল্য দেখা দিতে পারে৷ একেবারে কম ৰতি হলেও তাদের মানসিক বিকাশ যথাযথভাবে না হওয়ার ঝুঁকি থেকে যায়৷

উইনচেষ্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. ডেভিড গিল্স বলেন, কথিত সব কিশোর ম্যাগাজিনে থাকে স্বল্প বসনা বা নারীদের খোলামেলা রগরগে ছবি৷ যা উঠতি বয়সী বিশেষ করে তরম্নণদের মনোবিকাশে মারাত্মক ব্যাঘাত সৃষ্টি করে৷ সত্যিকার অর্থেই সেটা তরম্নণদের জন্য বিপজ্জনক৷ অপর একজন বিশেষজ্ঞের ভাষায়, এটা শুধু তরম্নণদের মনোবিকাশেই অনত্মরায় নয়; এমনকি নারীদের ৰেত্রেও সমান প্রভাব ফেলে৷ ঐ বিশেষজ্ঞের মতে, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কথিত কিশোর ম্যাগাজিনের ব্যবসা রমরমা হয়ে উঠেছে৷ এর পাঠকরা উপকারের বদলে প্রকারানত্মরে ৰতিগ্রসত্ম হচ্ছেন৷ বিষয়টি নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠলেও এর পেছনে যারা রয়েছেন তাদের টনক নড়ছে না৷ বরং পাঠকদের আরো আকৃষ্ট করার জন্য উদ্যোক্তারা অধিকতর নোংরা পন্থা অবলম্বন করছেন৷ ড. গিলস বলেন, কিছু কিছু বিষয়ভিত্তিক লেখায় কিশোরদের বিশেষ করে শরীর গঠন সম্পর্কে সচেতন করার প্রয়াস থাকলেও অনেক ৰেত্রেই তা তাদের স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ৰতিকর৷ ড. গিলসের সহযোগী জেসিকা ক্লোসি বলেন, কিশোর ম্যাগাজিনের নিয়মিত পাঠক ১৮ থেকে ৩৬ বছর বয়সী ১৬১ জন তরম্নণের ওপর তিনি সমীৰা চালান৷ তাতে দেখা গেছে, এদের সবাই কাল্পনিক বিষয়ে অতি উত্‍সাহী৷ সহজ কথায় বলা চলে, কল্পনার জগতে রীতিমতো এরা হাবুডুবু খান৷ বাসত্মবতা এদের কাছে অনেকটাই অকল্পনীয়৷ ফলে এরা বাসত্মব জগতে নিজেদের আত্মপ্রকাশ করতে চান না পারতপৰে৷ ৰেত্রবিশেষে এতে তারা অনেকটাই অপ্রস্তুত-বিব্রত৷

ড. গিলসের ভাষায়, মানসিক স্বাস্থ্য বিকাশের উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে যদিও কিশোর ম্যাগাজিন বের করা হয় তথাপি বেশিরভাগ ৰেত্রেই উঠতি বয়সী তরম্নণদের অবশেষে তাদের শরীর ও মন নিয়ে আবেগতাড়িত হতে দেখা যায়৷ কোন কোন ৰেত্রে উদ্বেগ-উত্‍কণ্ঠা বৃদ্ধির নিয়ামক ও কথিত কিশোর ম্যাগাজিন তার মতে কিশোর ম্যাগাজিনের নিবন্ধ অনুসরণ শেষে অনেক তরম্নণ বডি বিল্ডিং-এর নানা পন্থা অবলম্বন করে থাকেন৷ কোন কোন ৰেত্রে কৃত্রিম হরমোন ব্যবহারেরও নজির মেলে৷ অথচ এতে করে মানসিক বিকারগ্রসত্মতা নেমে আসার আশংকা রয়েছে৷ প্রাথমিক পর্যায়ে হয়তো কিছুটা সফলতা আসে- চূড়ানত্ম পর্যায়ে মানসিক অবসন্নতা ও শরীর ভেঙ্গে পড়ার ঝুঁকি থাকে প্রবলভাবে৷

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.