বিষাক্ত ক্যামিক্যাল দিয়ে ৫শ’ মন আলু বিনষ্ট করেছে দূবৃত্ত্বরা

মুন্সীগঞ্জে পূর্ব শুত্রুতার জের ধরে বিষাক্ত কেমিক্যাল দিয়ে জালাল খা নামের এক কৃষকের ৫শ’ মন আলু বিনষ্ট করেছে দূর্বত্ত্বরা। সোমবার সকালে সদর উপজেলার মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের চরডুমুরিয়া গ্রামের জমিতে স্থুপ করে রাখা আলুর বিক্রির জন্য যায় মালিক জালাল খা। সেখানে আলুর গোলা থেকে আলু বস্তাবন্ধি করতে গেলে দুটি আলুর কাড়িতে আলুর ব্যাপক পচন দেখে স্থানীয়দের খবর দেয়। পরে সেখানে আলু পচন দেখতে উৎসুক মানুষের ভির জমে। ঘটনার খবর পেয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রিপন পাটোয়ারী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

প্রত্যক্ষশীরা বলেন, আলু এমন পচন কোনদিন দেখা যায়নি। প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কারনে হলে আশ পাশের আলুরও ক্ষতি হওয়ার কথা কিন্তু আশপাশে এমন আলু কাড়ি অনেক রয়েছে। সেসব আলুর কোন ক্ষতি হয়নি। আথচ এই দুটি আলুর এমন পচন কি ভাবে হলো। আমরা মনে করি পূর্বশত্রুতার কারণে বিষাক্ত কেমিক্যালের মাধ্যমে এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে। এতে কৃষক জালাল খার প্রায় ৫শ মন আলুর ক্ষতি হয়েছে।

বিশাল আলুর পচনে ক্ষতিগ্রস্থ্য কৃষক জালাল খা বলেন, পূর্বশুত্রুতার জের ধরে এমন ঘটনা ঘটতে পারে। এর আগেও ৩ বার মোজা বেপারীর ছেলে আমীর বেপারী, অলি বেপারী, মন্টু দালালের ছেলে মনিক দালাল, আলমাস খার ছেলে ইকবাল খাসহ একটি সংঘবদ্ধ সন্ত্রাসীদল দেশি অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে আমার ও আমার ছেলের উপর সন্ত্রাসী হামলা চালীয়ে ব্যাপক মারধর করে। আগামী নির্বাচনে আমি মেম্বার প্রার্থী হবো বলেনই এসব সন্ত্রাসীরা আমাকে ক্ষতিগ্রস্থ্য করার লক্ষে এমন ঘটনা ঘটাতে পারে। আমরা আলু উত্তোলনে পর স্থুপ করে বৈশাখ মাস পর্যন্ত এ ভাবেই জমিতে রেখে দেই কোন বছরই এমন পচনের ঘটনা ঘটেনি। এ ব্যাপারে সদর থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। তবে এ ব্যাপারে অভিযুক্তদের সাথে কথা বলার চেষ্টা করে তা সম্ভব হয়নি।

কোন প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কারণে আলুর পচন হয়নি দাবী করে উপজেলা কৃষি-কর্মকর্তা জগদিশ চন্দ্র দেবনাথ বলেন, যে কোন বিষাক্ত ক্যামিক্যালের কারণে আলু এমন পচন হয়েছে। এটি শত্রুতা বশত ঘটানো হতে পারে। এ ব্যাপারে সদর থানার ওসি ইউনুছ আলী বলেন, ঘটনাটি আমি শুনেছি। আলুর মালিক লিখিত অভিযোগ দিলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জনকন্ঠ