প্রধানমন্ত্রী এবং সজীব ওয়াজেদ জয়ের আন্তর্জাতিক সম্মাননা প্রাপ্তিতে আওয়ামী লীগ জাপান শাখার আনন্দ উৎসব পালন

japanalরাহমান মনি: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক প্লানেট ৫০-৫০ এজেন্ট অব চেঞ্জ অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ এবং তার-ই সুযোগ্য পুত্র ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপকার, প্রথমবারের মতো চালু হওয়া ‘ডেভেলপমেন্ট অ্যাওয়ার্ড ফর আইসিটি’ প্রাপ্তিতে অভিনন্দন জানিয়ে জাপান শাখা আওয়ামী লীগ এক আনন্দ উৎসব পালন করে। দূর-দূরান্ত থেকে বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মীগণ এতে অংশ নেন।

রাজধানী টোকিওর কিতা সিটি হিগাশি তাবাতা চিইকি শিনকোউ শিৎসু হলে বৈকালিক এ আয়োজনে গতানুগতিকতা থেকে বেরিয়ে একটু ভিন্ন আমেজে নেতাকর্মীদের সবাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং তার তনয় সজীব ওয়াজেদ জয়ের সাফল্যে আনন্দে মেতে ওঠে তাদের উভয়ের সুস্বাস্থ্য, সুখী জীবন ও দীর্ঘায়ু কামনা করেন।
অনুষ্ঠানে কোনো প্রধান অতিথি, বিশেষ অতিথি কিংবা সভাপতি বা সঞ্চালক না থাকলেও সভাপতি সালেহ মোঃ আরিফ এবং সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আসলাম হিরার অংশগ্রহণ ও তত্ত্বাবধানে আনন্দে মেতে অভিনন্দন উৎসবে বক্তব্য রাখেন মোঃ মাসুদুর রহমান মাসুদ, মাসুদ পারভেজ, নাজমুল হোসেন রতন, আব্দুল কুদ্দুস, হারুন অর রশিদ, ড. খলিলুর রহমান, চৌধুরী সাইফুর রহমান লিটন, মোল্লা ওহেদুল ইসলাম, জাকির হোসেন জোয়ার্দ্দার, বাদল চাকলাদার, মনির হোসেন, কাজী মাহফুজুল হক লাল, আজম খান, আবদুর রাজ্জাক, খন্দকার আসলাম হিরা, সালেহ মোঃ আরিফ প্রমুখ।
japanal
অভিনন্দন উৎসবে বক্তারা সভানেত্রী এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং তার তথ্য ও প্রযুক্তি উপদেষ্টা তারই তনয় সজীব ওয়াজেদ জয়কে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, তাদের এই অর্জনে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে। এটি একটি বিরল ঘটনা। এই কারণে যে, একইসঙ্গে মা এবং পুত্রের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দ্বিতীয়টি আর নেই। বাংলাদেশকে বিশ্বায়নের অনেক উঁচুতে আসীন করায় দেশের ১৬ কোটি আপামর জনসাধারণের সঙ্গে আমরাও সমানভাবে আনন্দে উদ্বেলিত এবং গর্বিত।

তারা বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপকার, জাতিরজনক বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের ভিশন ২১ এবং এর সুফল বাংলাদেশে প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষ ভোগ করা শুরু করেছে। আজ গ্রাম আর গ্রাম নেই। কৃষি কাজেও উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে। মুহূর্তের মধ্যে তারা সবকিছুই জানতে পারছে। স্কাইপ, ইমু, টুইটার, ফেসবুক, ভাইবার বা লাইন-এর কথা আজ গ্রামের খেটে খাওয়া মানুষও জানতে পারছে। দেখতেও পারছে। নিজেরাও আপডেট করতে পারছে। আর ওসবের পিছনে প্রজ্ঞা এবং দূরদর্শিতা নিয়ে নিরলসভাবে যিনি কাজ করছেন তিনি আমাদের জননেত্রী শেখ হাসিনার পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়। বাঘের চৌদ্দ পুরুষ বাঘ-ই হয়। কখনো বিড়াল বা কুলাঙ্গার হয় না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একজন রতœাগর্ভা মা। জাতিরজনকের সুযোগ্য উত্তরসূরি।

উল্লেখ্য, সুদূরপ্রসারী উদ্যোগের মাধ্যমে বাংলাদেশকে ডিজিটাল বিশ্বের সড়কে পৌঁছে দেয়ার স্বীকৃতি হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা ও তার ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়ের হাতে জমকালো এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এই পুরস্কারটি তুলে দেয়া হয়। এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে ‘এজেন্ট অব চেঞ্জ অ্যাওয়ার্ড’ তুলে দেয় গ্লোবাল পার্টনারশিপ ফোরাম। ‘প্লানেট ৫০-৫০ চ্যাম্পিয়ন হিসেবে তিনি এ সম্মাননা অর্জন করেন। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনের অগ্রিম শুভেচ্ছা জানানো হয়।

rahmanmoni@gmail.com
সাপ্তাহিক

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s