শ্রীনগরে রাস্তার তৈরীর নামে দোকান পাট গুড়িয়ে দিয়েছে প্রভাবশালীরা

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার বালাশুর বাজারে রাস্তা তৈরীর নামে বিনা নোটিশে ৫টি দোকান মালপত্রসহ গুড়িয়ে দিয়েছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা। ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করে বলেন,শুক্রবার সকালে প্রতিদিনের ন্যায় দোকানদাররা দোকান চালাচ্ছিলেন, পাশেই দোকান মালিকের জায়গা দিয়ে জোর করে রাস্তা নির্মান করছিল স্থানীয় প্রভাবশালীরা। কিছু বুঝে উঠার আগেই বেকু/ বুল্ডুজার দিয়ে ২ টি মুদি দোকান, একটি মিষ্টির দোকান, একটি চায়ের দোকান, একটি ডেকোরেটর দোকানসহ ৫ টি দোকান গুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। দোকান থেকে কোন দোকানীকে একটা মালপত্রও বের করে নেওয়ার সময় পায়নি এবং বের করে নেওয়ার মত কোন সময় দোকানদারদেরও দেওয়া হয়নি। ভুক্তভোগী মুদি দোকানী আমজাদ হোসেন জানান, কোন প্রকাশ নোটিশ ছাড়াই পেশি শক্তি ব্যবহার করে আমার দোকানে সমস্ত মালামালসহ দোকান গুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। দোকান থেকে একটা পানির বোতলও বের করতে পারিনাই। কি করবো এখানে বড় বড় রাঘব বোয়ালদের ইশারাতে ঘটনাটি ঘটানো হয়েছে। আমরা জানতে চাইলে তারা বলেন, বাঁধা দিতে আসলে হাত পা ভেঙ্গে দেয়া হবে। উপর মহলের নির্দেশেই দোকানগুলো গুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। আরেক ভুক্তভোগী মুদি দোকানি আবুল জানান, আমার দোকান ভেঙ্গে খালে ফেলে দিয়েছে । স্বাধীন দেশে এমন বর্বর কর্মকান্ড হবে তা আমরা কখনও ভাবিনি। জোর করে রাস্তায় তো বানিয়েছে কিন্তু রাস্তার পাশের ৫ টি দোকান ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেওয়া হল কেন?।

ক্ষতিগ্রস্থ দোকানি মিরাজ জানান, সাবেক ইউপি সদস্য হানিফ মেম্বার এর ব্যক্তি মালিকানা জায়গায় একটি চায়ের দোকান, একটি ডেকোরেটর দোকান, একটি মিষ্টির দোকান, ২টি মুদি দোকানসহ ৫ টি দোকান ভাড়া নিয়েছিল ৫ জন দোকানী। শত্রু থাকলে দোকানের মালিকের সাথে থাকতে পারে, আমরা কি দোষ করেছি আমাদের সমস্ত মালামালসহ দোকান গুড়িয়ে দিয়েছে। দোকানের নষ্ট মালগুলোও আমাদের নিতে দেয়নি। বলে কোন মালে হাত দিলে হাত কেঁটে ফেলবে। কোন মামলা অভিযোগ এবং কোন গণমাধ্যম কর্মীদের এই বিষয়টি যেন আমরা না জানাই সেজন্য পুলিশ দিয়ে মালিক এবং দোকানদারদেরকে নানা ভয়বীতি ও হয়রানি করছে। এবং ক্ষতিগ্রস্থ দোকান মালিককেও এলাকা ছাড়া করেছে। সরেজমিনে শনিবার বিকালে ঘটনাস্থলে গেলে সাংবাদিক দেখে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে জানান, নানান ক্ষোভের কথা। তারা বলেন, যারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে তারা সবাই প্রভাবশালী। কারা ঘটনাটি ঘটিয়েছে তাদের নাম কেউ বলতে সাহস পায়নি। তবে সবার মুখে একই কথা উপর মহলের ইশারাতে হয়েছে। এখানে কেউ প্রতিবাদ করলে তার কোন রক্ষা নেই।

দোকান মালিকের স্ত্রী হাসিনা বেগম বলেন, আমরা কোন দল করিনা তবুও তারা আমাদের কখনও বিএনপি , কখনও আওয়ামিলীগ আক্ষায়িত করে এই চক্রটি দীর্ঘদিন ধরে ক্ষতি করার চেষ্টা করে আসছে। আমার স্বামী টানা চার চার বারের মত ইউপি সদস্য ছিল। আমাদের দোকানগুলো বিনা নোটিশে ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী প্রকৌশলী দরিন্দ্র নাথ জানান, এ বিষয়টি আমাদের জানা নেই। উচ্ছেদকৃত জায়গাটিও আমাদের নয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা যতন মার্মা বলেন, দোকান উচ্ছেদের বিষয়টি আমাদের জানা নেই। দোকানগুলো উচ্ছেদের জন্য আমাদের পক্ষ থেকে কোন নোটিশ বা নির্দেশনাও দেওয়া হয়নি।

মুন্সীগঞ্জ ১ আসনের সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ বলেন, রাস্তাটি নির্মানের জন্য হানিফ মেম্বারকে জায়গা ছেড়ে দিতে বলেছিল এলাকাবাসী। কিন্তু হানিফ মেম্বার এলাবাসীর বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছিল। আমি শুনেছি এলাকার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে দোকানগুলো উচ্ছেদ করেছে। এ বিষয়টি দুই পক্ষের কেউ আমাকে জানায়নি।

চমক নিউজ

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s